কুরবানীর ২য় ও ৩য় দিন কি কুরবানী করা যাবে? 

মুফতি কাজী মনসুর



যিলহজ্ব মাসের  ১০ তারিখ থেকে ১২ তারিখ সূর্যাস্তের আগ পর্যন্ত মোট তিন দিন কুরবানীর সময়। তাই কুরবানীর ২য় ও ৩য় দিন কুরবানী করা যাবে। তবে সবচেয়ে উত্তম হল প্রথম দিন কুরবানী করা। 

এরপর দ্বিতীয় দিন। এরপর তৃতীয় দিন।​

(বাদায়েউস​ সানায়, ফাতাওয়া হিন্দিয়া)

عن البراء عن النبي صلى الله عليه وسلم قال : إن أول ما نبدأ به في يومنا هذا أن نصلي ثم نرجع فننحر، فمن فعل ذلك فقد أصاب سنتنا، ومن ذبح قبل فإنما هو لحم قدمه لأهله، ليس من النسك في شيء.‎

বারা রা. থেকে বর্ণিত, নবী কারীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামবলেছেন, ঈদের দিন আমরা প্রথমে নামায আদায় করি। অতপরফিরে এসে কুরবানী করি। যে ব্যক্তি এভাবে আদায় করবে সেআমাদের নিয়ম মতো করল। আর যে নামাযের আগেই পশু জবাইকরল সেটা তার পরিবারের জন্য গোশত হবে, এটা কুরবানী হবেনা।-সহীহ মুসলিম ২/১৫৪

♦প্রথম দিন কখন থেকে কুরবানী করা যাবে

যেসব এলাকার লোকদের উপর জুমা ও ঈদেরনামায ওয়াজিব তাদের জন্য ঈদের নামাযের আগে কুরবানী করাজায়েয নয়। অবশ্য বৃষ্টিবাদল বা অন্য কোনো ওজরে যদি প্রথমদিন ঈদের নামায না হয় তাহলে ঈদের নামায আদায় পরিমাণসময় অতিক্রান্ত হওয়ার পর প্রথম দিনেও কুরবানী করা জায়েয।

সহীহ বুখারী ২/৮৩২, কাযীখান ৩/৩৪৪, আদ্দুররুল মুখতার৬/৩১৮; সহীহ মুসলিম ২/১৫৪)

روى الشيخان عن الرسول صلى الله عليه وسلم قال : من ذبح قبل الصلاة فإنما يذبح لنفسه ومن ذبح بعد الصلاة فقد تم نسكه وأصاب سنة المسلمين.‎

রাসূলে কারীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ইরশাদ করেছেন, যেব্যক্তি ঈদের নামাযের পূর্বে কুরবানীর পশু জবাই করবে সেটা তারনিজের জন্য সাধারণ জবাই হবে। আর যে নামায ও খুতবার পরজবাই করবে তার কুরবানী পূর্ণ হবে এবং সে-ই মুসলমানদের রীতিঅনুসরণ করেছে।

(সহীহ বুখারী ২/৮৩৪; সহীহ মুসলিম ২/১৫৪)

♦রাতে কুরবানী করার হুকুম কী?

১০.  ১০ ও ১১ যিলহজ্ব দিবাগত রাতেও কুরবানী করা জায়েয। তবে রাতে কুরবানী না করা ভাল। বরং দিনে কুরবানী করাই উত্তম ।

( আদ্দুররুল মুখতার, কাযীখান, বাদায়েউসসানায়ে)

Post a Comment

Previous Post Next Post